মু্ত্তাকীদের পরিচয় ও বৈশিষ্ট্য

মুত্তাকী ব্যক্তির পরিচয় ও বৈশিষ্ট্য - বঙ্গ টুইট - Bongo Tweet

মুত্তাকীন কারা বা মু্ত্তাকী ব্যক্তির পরিচয়

মুত্তাকী (مُتٌَقِىْ ) এমন ব্যক্তি যার মধ্যে তাকওয়া রয়েছে। তাকওয়া একটি অসাধারণ নৈতিকগুণ। আল্লাহর কাছে মর্যাদা প্রাপ্তির এক অনিবার্য উপায়। পরকালীন জীবনে ব্যক্তির ক্ষতির কারণ হতে পারে এমন কাজ ও বিষয় থেকে বিরত থাকাই তাকওয়া।

মুত্তাকীদের বৈশিষ্ট্য এবং মুত্তাকীদের গুণাবলী 

১. গায়বের প্রতি বিশ্বাসী : মুত্তাকী ব্যক্তির প্রথম পরিচয় হলাে তারা গায়ব বা অদৃশ্য বিষয়সমূহে ঈমান পােষণ করে। আর গায়ব হলাে এমন বিষয় যা ইন্দ্রিয় দিয়ে অনুভব করা যায় না। সাধারণ বুদ্ধি দিয়ে বােঝা যায়।

২. সালাত কায়েমকারী : মুত্তাকীর দ্বিতীয় বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করে আল্লাহ বলেন- وَيُقِىْمُوْنَ اصٌَلٰوتَ
অর্থ: আর তারা সালাত কায়েম করে (সুরা আল-বাকারা: ৩)। মুত্তাকীর সালাত কায়েম করার অর্থ হলাে সে নিজে সমস্ত নিয়ম মেনে বিনয়-নম্রতা ও নিষ্ঠার সাথে সালাত আদায় করে। যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে সালাতের ফরজ, ওয়াজিব, সুন্নত, নফল, হারাম, মাকরুহ প্রভৃতি বিধান পালনের মধ্যমে সমাজে নামাজ পতিষ্ঠা করা।

আরও পড়ুনঃ

৩. আল্লাহর পথে সম্পদ ব্যয়কারী : মুত্তাকীর তৃতীয় বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করে আল্লাহ বলেন- وَمِمٌَا رَزَقْنَهُم يُنفِقُوْنَ
অর্থ: আর তাদের যে জীবিকা দেওয়া হয়েছে, তারা সেখান থেকে ব্যয় করে (সুরা আল-বাকারা: ৩)। মুত্তাকীর ফি সাবিলিল্লাহ বা আল্লাহর পথে সম্পদ ব্যয় করার অর্থ হলাে তারা জাকাত-সাদাকাহ আদায় করে। মানুষের যেকোনাে কল্যাণে নিজেদের সম্পদ ব্যয় অব্যাহত রাখে।

৪. আসমানি কিতাবে বিশ্বাসী : মুক্তাকী আসমানি কিতাব এর সত্যতায় বিশ্বাস রাখে। আল্লাহ বলেন- "আর যারা আপনার প্রতি যা আমি নাজিল করেছি তার প্রতি ইমান রাখে। যা আপনার পূর্বে নাজিল করেছি তার প্রতিও বিশ্বাস পােষণ করে (সুরা আল-বাকারা: ৪)। এক্ষেত্রে অবশ্য বিশ্বাসের ধরনে পার্থক্য রয়েছে। মুক্তাকীরা রাসুলুল্লাহ (স) এর পূর্বে নাজিলকৃত আসমানি কিতাবগুলাে যে আল্লাহর পক্ষ থেকেই নাজিল হয়েছে সে বিশ্বাস রাখে, কিন্তু এগুলাের অনুসরণ ও অনুশীলন করে না।

৫. পরকালে বিশ্বাসী : মুত্তাকীরা পরকালে সুদৃঢ় প্রত্যয় পােষণ করে। আল্লাহ বলেন- وَبِا لْاٰ خِرَتِ هُمْ يُوْ قِنُوْن
অর্থ: আর তারাই পরকালে ইয়াকিন বা বিশ্বাস পােষণ করে (সুরা আল-বাকারা: ৪)। ইয়াকিন হলাে অত্যন্ত সুদৃঢ় বিশ্বাস। মুত্তাকীরা বিশ্বাস করে- পৃথিবী ক্ষণস্থায়ী। এখানে মানুষ মাত্র কিছুকাল অবস্থান করবে। পৃথিবীতে তারা মূলত প্রস্তুতি নেবে পরবর্তী জীবনের জন্য। সে জীবন অনন্তকালের।

2 মন্তব্যসমূহ

  1. ৩ নম্নর পয়েন্টে সুরার নাম ও আয়াত সংখ্যা ভুল দেওয়া আছে।

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. ঠিকই তো আছে। সূরা আল বাকারা,আয়াত নাম্বার ৩।

      মুছুন

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন